গাছা থানায় সাকিল হত্যায় ৪ আসামী গ্রেফতার

মো: বশির আলম, টঙ্গী (গাজীপুর) প্রতিনিধি

১,৩৫৪

গাজীপুর মহানগরীর গাছা থানাধীন কোনিয়া পাচর এলাকায় গত ১২ এপ্রিল সন্ধ্যায় মোবাইল ফোনে পাবজি গেইমস্ খেলাকে কেন্দ্র করে নূর আলম সাকিল ও তার সহযোগী ফাহিমকে একই এলাকার বখাটে ছেলেদের সাথে কথার বাকবিতন্ডায় এক পর্যায় এলোপাথারী চাপাতি, ছুরি ও রড দিয়ে কুপিয়ে গুরুতর আহত করে। তাদের ডাকচিৎকারে স্থানীয় লোকজন এগিয়ে আসলে হামলাকারীরা দ্রুত ঘটনাস্থল ত্যাগ করে চলে যায়। পরে লোকজনের সহযোগিতায় গুরুতর আহত অবস্থায় তাদেরকে উদ্ধার করে স্থানীয় তাইরুননেছা মেডিকেল হাসপাতালে নিলে চিকিৎসক নূর আলম সাকিলকে মৃত ঘোষণা করেন ও তার সহযোগি ফাহিমকে অবস্থার অবনতি দেখে দ্রুত উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে হস্তান্তর করেন। এই ঘটনায় নিহত সাকিলের বাবা গাছা থানায় একটি হত্যা মামলা এজাহার দায়ের করেন।

উক্ত ঘটনার দিন স্থানীয় লোকজন থানা পুলিশকে সংবাদ দিলে তাৎক্ষণিকভাবে গাছা থানায় কর্মরত অফিসার ইনচার্জ মো: ইসমাইল হোসেনের দ্রুত নির্দেশনায় চৌকশ পুলিশ কর্মকর্তা এসআই সাইফুল ঘটনাস্থলে পরিদর্শনে এসে তাৎক্ষণিক বিভিন্ন লোকজনের জিজ্ঞাসাবাদে জানতে পারেন হত্যাকান্ডের সাথে জড়িত সন্দেহে স্থানীয় কাউন্সিলর সাইফুল ইসলাম দুলালের সার্বিক সহযোগিতায় হাবিবুল্লাহ নামে একজনকে গ্রেফতার করেন। এ ঘটনায় গাছা থানায় আবু সাঈদ ও মো: হাবিবুল্লাহসহ অজ্ঞাতনামা ১০/১২জনকে অভিযুক্ত করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করা হয় (যাহার নং-৯)। অভিযোগের বিষয়টি আমলে নিয়ে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা বিভিন্ন জায়গায় অভিযান পরিচালনা করিয়া মো: আশরাফুল ইসলাম, মো: মিজান, মো: শিমুল নামে আরো ৩ জনকে গ্রেফতার করেছে। ইতিমধ্যে মামলার এজাহার নামীয় ২নং আসামী হাবিবুল্লাহ স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে।

অপরদিকে এ ঘটনায় ৩৭নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর সাইফুল ইসলাম দুলালের ছেলে সাব্বিরের বিরুদ্ধে হত্যাকান্ডে ষড়যন্ত্র আছে মর্মে বিগত ১৩ এপ্রিল গাছা থানা যুবলীগের সভাপতি পদপ্রার্থী দাবী করে জুয়েল মন্ডল তার নিজ বাড়িতে এক সংবাদ সম্মেলনে দাবী করেন।

এ বিষয়ে স্থানীয় কাউন্সিলর সাইফুল ইসলাম দুলাল বলেন, ঘটনারদিন আহত ফাহিমের বাবা ফারুক আমাকে মুঠোফোনে ঘটনার বিষয় অবগত করে। আমি তাৎক্ষণিক থানা পুলিশকে অবগত করে ঘটনাস্থল থেকে জড়িত সন্দেহে একজনকে আটক করতে পুলিশকে সহযোগিতা করি। এ ধরনের ঘটনা যারা জড়িত সুষ্ঠু ন্যায় তদন্তের মাধ্যমে চিহ্নিত করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি নিশ্চিত করার দাবী জানাচ্ছি। স্থানীয় ছাত্রলীগ নেতা তার নিজস্ব কর্মী সহযোগি ছাত্রলীগ কর্মী দাবী করে আমার পরিবারকে জড়িয়ে যেসকল কথা বলেছে তাহা সম্পূর্ণ রাজনৈতিক প্রতিহিংশা বসবতি হইয়া এইসকল কথাবার্তা বলেছে যাহা সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন। এলাকায় শান্তিশৃঙ্খলা রক্ষায় প্রশাসনের যে কোন ধরনের সহযোগিতায় পাশে থাকবো।

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.