বুধবার, জুন ১৯, ২০২৪
spot_img
Homeআইন-অপরাধনেত্রকোনায় সুজনা- রাবেয়া- হালিমা তিন নারীর প্রতারণা চক্র , ভূক্তভোগী অনেক পরিবার...

নেত্রকোনায় সুজনা- রাবেয়া- হালিমা তিন নারীর প্রতারণা চক্র , ভূক্তভোগী অনেক পরিবার দিশেহারা “

শামসুজ্জামান মাসুদ, নেত্রকোনা শহরে কুড়পাড় এলাকায় সুজনা- রাবেয়া- হালিমা নামের তিন নারী চক্রের প্রতারণার ফাঁদে পড়ে অনেক পরিবার দিশেহারা। সরেজমিনে এর সত্যতা পাওয়া যায়। জানা যায় , তিন নারী কেন্দুয়া উপজেলার দলপা ইউনিয়নের বাহাগুন্দ গ্রামের বাসিন্দা।

বাহাগুন্দ গ্রামের মৃত আ: রহিমের মেয়ে সুজনা আক্তার ( ৩৩) ও তার স্ত্রী রাবেয়া বেগম কমলা ( ৬৫ ) অপরজন একই গ্রামের মৃত সিদ্দিক মিয়ার স্ত্রী হালিমা আক্তার ( ৬৫ ) সুজনা – রাবেয়া – হালিমা দীর্ঘদিন ধরে পৌর কুড়পাড় ভূইয়া বাড়ী এলাকায় ভাড়া বাসা করে থাকত I

স্বামী হারা সুজনা লোকজন কে তার স্বামী দুবাই থাকে ব্যবসা করে বলে অনেকের কাছ থেকে নগদ ধার , সূদ টাকা আত্মসাৎ করে । মুদির দোকান থেকে বাকী,চালের ব্যবসা করে বলে অনেক চাউলের বস্তা, ব্যক্তিগত ব্যবসায়িক ও এনজিও থেকে ফ্রিজ, টিভি , বিভিন্ন রকমের ফার্নিচার নিয়ে লাপাত্তা।

মোবাইল যোগাযোগ করে পাওয়া যায় না। ভুক্তভোগীরা তার গ্রামের বাড়িতে গেলে সেখানেও তাদের একইভাবে প্রতারণার ইতিহাস রয়েছে। সুজনার চার ভাই হেলিম, হারুন, হান্নান, সেলিম জানান , সুজনা ও তাদের মা এলাকায়
প্রতারণা করে লক্ষ লক্ষ টাকা আত্মসাৎ করে নিয়ে গেছে।

তাদের আরেক বোনের বাড়ী আটপাড়া দেওগাঁও থেকে কয়েক লক্ষ টাকা প্রতারণা করে নিয়ে গেছে । বোন আর মা কোথায় আছে জানি না । তারা আরো বলে, আপনাদের টাকা আদায় করেন , আইনি ব্যবস্থা নিন আমাদের কোন আপত্তি নাই ।

এলাকার লোকজন থেকে জানা যায় , মেয়ে মায়ের প্রতারণায় সহযোগিতা করে একই গ্রামের হালিমা আক্তার । সদরের বালী গ্রামের শফিকুল ইসলাম ও স্ত্রী রিনা আক্তার। একটি এনজিও পক্ষথেকে বারহাট্টা রোডের ওয়ালটন শো- রোম থেকে একটি ফ্রিজ ।

কুড়পাড় মায়ের দোয়া ইলেকট্রনিক আরেক টি ফ্রিজ নিয়ে অন্য জায়গায় হালিমা আক্তার , রিনা আক্তার ও শফিকুল ইসলামের সহযোগিতায় অন্য জায়গায় কম দামে বিক্রি করে। রেল ক্রসিং ও বড় বাজার চাল মহাল চালের বস্তা আনে ।

দোকান বাকি ও লক্ষ লক্ষ টাকা প্রতারণার ফাঁদে ফেলে অনেক পরিবারের আর্থিক ক্ষতি করে রাতের আঁধারে বাসা ছেড়ে চলে যায় ।মায়ের দোয়া ইলেকট্রনিক এর মালিক মতিউর রহমান জানান,নারী প্রতারক সুজনার মা রাবেয়া আক্তার তার

দোকান থেকে ৪০,৮০০/= দামের ফ্রিজ বাকীতে নেন এক মাস পর তার জামাই দুবাই থেকে টাকা পাঠালে মূল্য পরিশোধ করবে। মূল্য পরিশোধ না করে এই প্রতারক চক্র অনেকের ক্ষতি করে পালিয়ে যায়। এই বিষয়ে আমি আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করবো । এতে করে আমার ব্যবসার ক্ষতি হয়েছে ।

সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের নিকট আবেদন সুজনা রাবেয়া হালিমা এই তিন নারীর প্রতারণা চক্রের বিচার কামনা করি। এ ব্যপারে এলাকায় চাপা ক্ষোভ বিরাজ করছে ।

spot_img
এই বিভাগের অনান্য সংবাদ

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

spot_img

জনপ্রিয় সংবাদ