সুনামগঞ্জে ধর্ম নিয়ে কুটক্তি,বিক্ষোভ: ডিজিটাল মামলায় ৪ যুবক গ্রেফতার

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি,:

২৩২

মোজাম্মেল আলম ভূঁইয়া-সুনামগঞ্জে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে কোরআন অবমানার ঘটনাকে কেন্দ্র করে ধর্ম ও প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে কুটক্তি করার অপরাধে ডিজিটাল মামলায় ৪ যুবককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

গ্রেফতারকৃতরা হলো- জেলার দোয়ারাবাজার উপজেলার মান্নারগাঁও ইউনিয়নের আমবাড়ি গ্রামের কৃপাসিন্ধু রায়ের ছেলে কৌশিক রায় (১৮), একই ইউনিয়নের ইদনপুর গ্রামের নজির উদ্দিন মাস্টারের ছেলে মাহমুদল হাসান মামুন

(২০), শাল্লা উপজেলার আটগাঁও ইউনিয়নের দাউদপুর গ্রামের বিধু বরন দাসের ছেলে অসিত বরণ দাস (১৯) ও ছাতক উপজেলার সদর ইউনিয়নের মধুকানী গ্রামের ফয়েজুল ইসলামের ছেলে মাহমুদ হাসান (২২)।

পুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে- আজ রবিবার (২৪ অক্টোবর) দুপুরে গ্রেফতারকৃত যুবক কৌশিক রায়কে আদালতের মাধ্যমে কারাঘারে পাঠানো হয়েছে।

এরআগে গতকাল শনিবার (২৩ অক্টোবর) বিকেলে জেলার দোয়ারাবাজার উপজেলার আমবাড়ি গ্রামের যুবক কৌশিক রায় তার নিজ ফেসবুক আইডিতে ধর্ম নিয়ে কুটক্তি করে পোস্ট দেয়।

এঘটনায় এলাকার লোকজন উত্তেজিত হয়ে সন্ধ্যা ৭টায় বিক্ষোভ মিছিল শুরু করে। এখরব পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে এবং কৌশিক রায়কে গ্রেফতার করে রাতেই তার বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে একটি মামলা দায়ের করা হয়।

তার আগে একই উপজেলার ইদনপুর গ্রামের নজির উদ্দিন মাস্টারের ছেলে মাহমুদল হাসান মামুন তার ফেসবুকে আইডিতে সাম্প্রদায়িক উস্কানীমূলক পোস্ট দেওয়ার কারণে ডিজিটাল মামলায় তাকে গ্রেফতার হয়।

এছাড়া প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে নিয়ে ফেসবুকে কুরুচীপূর্ণ মন্তব্য করায় ছাতক উপজেলা থেকে মাহমুদ হাসানকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

শাল্লা উপজেলার আটগাঁও ইউনিয়নের দাউদপুর গ্রামের অসিত বরণ দাস ইসলাম ধর্মকে নিয়ে কটাক্ষ করে তার নিজের ফেসবুক আইডিতে পোষ্ট দেওয়ার চারদিকে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়লে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আবু সুফিয়ানের নেতৃত্বে অভিযান চালিয়ে ওই যুবককে গ্রেফতার করা হয়।

দোয়ারাবাজার থানার ওসি দেবদুলাল ধর, শাল্লা থানার ওসি আমিনুল ইসলাম ও ছাতক থানার ওসি মিজানুর রহমান ৪ যুবক গ্রেফতারের ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে সাংবাদিকদের জানান, কোরআন অবমাননার ইস্যুকে কেন্দ্র করে ফেসবুকে অপপ্রচার ও উস্কানীমূলক বক্তব্য বা পোস্ট দিয়ে যারা আইন-শৃঙ্খলা বিঘœ করার চেষ্টা করবে তাদেরকে ছাড় দেওয়া হবেনা, কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

 

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.