সেনবাগের বীজবাগে নির্বাচন পরবর্তী সহিংসতা, প্রতিপক্ষের হামলায় আহত ৫ জন

নোয়াখালী প্রতিনিধি:

১৬৭

মোঃ জাহাঙ্গীর আলম,নোয়াখালীর সেনবাগে ইউপি নির্বাচন পরবর্তী সহিংসতার ঘটনায় প্রতিপক্ষ আনারস মার্কার কর্মী সমর্থকদের হামলায় টেলিফোন মার্কার ৫জন সমর্থক মারাত্বক আহত হয়েছে।

এদের মধ্যে মোঃ সাজু (৪৫) ও রিদয় (২১) অবস্থা গুরুত্বর তাদের দুইজনের হাত ভেঙ্গে দেওয়া হয়েছে।

ওই হামলার ঘটনাটি ঘটেছে নির্বাচনের পরের দিন ( ২৯ নভেম্বর) সোমবার বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে সেনবাগ উপজেলার ৮নং বীজবাগ ইউনিয়নের শ্যামেরগাঁও গ্রামের সেবাখোলা নামকস্থানে।

আহতরা ফেনীর একটি হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন। এঘটনায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।

৮নং বীজবাগ ইউনিয়নের নির্বাচনে টেলিফোন মার্কার স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী ও সাবেক চেয়ারম্যান হারুন অর রশিদ জানায়, রোববার ২৮ নভেম্বর বীজবাগ ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়।

ওই নির্বাচনে তিনি টেলিফোন মার্কা নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করে আনারস মার্কার প্রার্থী সেলিম কাজলের নিকট পরাজিত হন।

নির্বাচনের পরের দিন তার কয়েকজন কর্মী বীজবাগ ইউপির শ্যামেরগাও গ্রামের সেবাখোলা বাজার নামকস্থানের একটি দোকানে বসে জয়-পরাজয় নিয়ে কথা বলার সময় আনারস মার্কার কর্মী ও

সমর্থন রাকিব, জাকের, রুবেল, আহসান উল্যা, আবুল হাসেম, আমজাদ হোসেনে, রকি (ইয়াবা রকি), রতন ও ইব্রাহিমে নেতৃত্বে কর্মী সমর্থকরা অতর্কিতে হামলা চালিয়ে এলোপাথাড়ী পিটিয়ে

সাজু ও রিদয়ের দুই হাত ভেঙ্গে দেয় এবং কিলঘুশি মেরে আহত করে।

এসময় তাদের আত্মচিৎকারে স্থানীয়রা এগিয়ে এসে আহতদের উদ্ধার করে সাজু ও রিদয়কে ফেনীর একটি হাসপাতালে ভর্তি করার এবং আহত অপরদের স্থানীয় ভাবে চিকিৎসা দেন।

এব্যাপারে যোগাযোগ করলে সেনবাগ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোঃ ইকবাল হোসেন পাটোয়ারী জানান এধরণের ঘটনা কেউ থানায় অবহিত করেনী। তবে, থানায় অভিযোগ দিলে প্রয়োজনীয় আইনী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

 

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.