রৌমারীতে সেই আওয়ামীলীগ নেতার বিরুদ্ধে মামলা, দল থেকে অব্যাহতি

কুড়িগ্রাম প্রতিনিধিঃ

কুড়িগ্রামের রৌমারীতে এক প্রধান শিক্ষককে মারধরের ঘটনায় উপজেলা আওয়ামী লীগের সদ্য ঘোষিত কমিটির ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ পদটিসহ দল থেকে মো. রোকনুজ্জামান রোকনকে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে। শনিবার (২১ জানুয়ারি) রাতে রৌমারী প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য

জানান রৌমারী উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও রৌমারী সিজি জামান উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আবু হোরায়রা। সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন- রৌমারী উপজেলা আওয়ামী লীগের সদ্য ঘোষিত কমিটির ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক মো. রোকনুজ্জামান রোকন

উপজেলার ফুলকারচর নিম্ন মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. নুরুন্নবীকে আমার অফিস কক্ষে কথা বলা ও বাক-বিতণ্ডার সময় হঠাৎ তাকে চড়থাপ্পড়, কিল-ঘুষি মারতে থাকেন। এটা মোটেও ঠিক করেননি তিনি। বড় মাপের অন্যায় করেছেন। বিষয়টি তাৎক্ষণিক কুড়িগ্রাম জেলা

আওয়ামী লীগকে জানানোর পর, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকের নির্দেশে মো. রোকনুজ্জামান রোকনকে শিক্ষককে মারধর করা এবং দলীয় শৃঙ্খলা পরিপন্থী কর্মকাণ্ডের জন্য উপজেলা আওয়ামী লীগের সদ্য ঘোষিত কমিটির ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ পদটিসহ আওয়ামী লীগের

সকল কার্যক্রম থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়। এ ঘটনায় শনিবার রাতে আওয়ামী লীগ নেতা রোকনুজ্জামান রোকন ও অজ্ঞাতনামা আরও ১০-১২ জনের বিরুদ্ধে রৌমারী থানায় মামলা দায়ের করেছেন ভুক্তভুগী প্রধান শিক্ষক মো. নুরুন্নবী। প্রসঙ্গত, গত বৃহস্পতিবার(১৯ জানুয়ারি) বিকেলে

রৌমারী উপজেলা পরিষদ ভবন থেকে নির্যাতিত শিক্ষককে জোরপূর্বক তুলে নিয়ে উপজেলা পরিষদ গেটে একটি বাস কাউন্টারে আটকে রাখেন রোকন ও তার লোকজন। পরে সন্ধ্যার দিকে তাকে উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সিজি জামান সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের

প্রধান শিক্ষক আবু হোরায়রার অফিস কক্ষে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে তিনি প্রধান শিক্ষক আবু হোরায়রাকে ঘটনা খুলে বলতে থাকেন। এসময় রোকন ক্ষিপ্ত হয়ে শিক্ষক নূরুন্নবীকে শার্টের কলার

ধরে চড়-থাপ্পড় ও কিল-ঘুসি মেরে আহত করেন। পরে তাকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা দেওয়া হয়।

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.