আমাদের ৪ লাখ কোটি টাকা রিজার্ভ আছে পরিকল্পনামন্ত্রী

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি:

৫৫

মোজাম্মেল আলম পরিকল্পনামন্ত্রী এমএ মান্নান বলেছেন- আমাদের কাছে ৪ লাখ কোটি টাকা রিজাভ আছে। আমরা সাহায্যের জন্য কারো কাছে হাত পাতি না। আমাদের মজুতকৃত টাকা বিদ্যুৎ, সড়ক, সেতু, পানি, স্কুল-কলেজ, হাসপাতাল ও রেলের উন্নয়নে ব্যয় হবে। আজ শুক্রবার (৪

ফেব্রুয়ারী) দুপুরে সুনামগঞ্জ পৌর শহরের মল্লিকপুর এলাকার জনতা চক্ষু হাসপাতালের উদ্বোধন শেষে অনুষ্ঠিত সভায় তিনি এসব কথা বলেন। এসময় মন্ত্রী আরো বলেন- প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যখন পদ্মা সেতুর নির্মাণ কাজ শুরু করেছিলেন তখন অনেকেই বলে ছিলো এদেশ দেউলিয়া হয়ে

যাবে। কিন্তু হয়নি বরং আমাদের রিজার্ভ বেড়েছে। বাজেটের এক টাকাও খয়রাতি না। আল্লাহ সাক্ষী আমরা এখন অনেক টাকা দান করি। মন্ত্রী বলেন- প্রধানমন্ত্রী এদেশের কাছে দায়বব্ধ। উনার মাঝে দেশপ্রেম আছে। এজন্য তিনি একটানা ১২বছর কাজ করছেন। অনেকেই কথায় কথায় সিঙ্গাপুর ও

কোরিয়ার উদাহরণ দেন। কিন্তু সেই দেশের নেতারা ৩০ থেকে ৩৫ বছর একটানা কাজ করে তাদের দেশকে এই পর্যায়ে নিয়ে গেছে। আমরাও এদেশকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার জন্য প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনায় দিনরাত কাজ করে যাচ্ছি। পরিকল্পনামন্ত্রী বিএনপির উদ্দেশ্যে বলেন- ভোটের মাঠে না

থেকে ভোট হতে দেবো না, এমন ধমক না দিয়ে আসেন আলোচনা করেন। নির্বাচনে বসেন, ভয় দেখিয়ে কাজ হবেনা। এদেশের মানুষ আপনাদের সবকিছু বুঝে গেছে। আপনাদের ভয়ে দেশের উন্নয়ন থেমে থাকবেনা। শেখ হাসিনার উন্নয়নে মানুষ মজা পেয়ে গেছে। এখন উন্নয়নে কেউ বাঁধা

দিলে তাদের প্রতিহত করা হবে। তিনি বলেন- সুনামগঞ্জের হাওর এলাকায় উড়াল সড়ক নির্মাণ প্রকল্পের কাজ শিগগিই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা উদ্বোধন করবেন। এই প্রকল্পটি আমরা অত্যন্ত স্পর্শকাতর জায়গায় করছি। হাওর হলো আমাদের মা। মায়ের বুকের ওপর দিয়ে কাজ হবে। এজন্য

প্রধানমন্ত্রী বারবার আমাদের সতর্ক করে দিয়েছেন। তিনি বলেছেন একটি হিজল-করছ গাছ যেন নষ্ঠ না হয়। মাছের যেন কোন ক্ষতি না হয়। তার প্রতিটি নির্দেশনা মেনেই আমরা কাজ করব। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রকৌশলী নন। কিন্তু তিনি একজন চিন্তক, অগ্রসর ও দক্ষ মানুষ। তার

ভাবনা থেকেই এই প্রকল্পের সৃষ্ঠি। এটি একটি আইকনিক প্রকল্প। ৩ হাজার ৪৯০ কোটি টাকার এই প্রকল্প বাস্তবায়িত হলে দেশের উত্তর-পূর্ব কোণে ভূমিধস পরিবর্তন আসবে। এই প্রকল্প দেশের অবকাঠামো উন্নয়নে নতুন দিক উন্মোচিত হবে। এজন্য হাওর এলাকার এই উড়াল সড়ক নির্মাণ

প্রকল্পকে ‘ জলাভূমিতে টেকসই সড়ক নির্মাণে শেখ হাসিনার মডেল’ বলে উল্লেখ করেন পরিকল্পনামন্ত্রী এমএ মান্নান। উক্ত অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন- সুনামগঞ্জ ১ আসনের এমপি ইঞ্জিনিয়ার মোয়াজ্জেম হোসেন রতন, জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর হোসেন, পুলিশ সুপার

মোহাম্মদ মিজানুর রহমান, জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান নুরুল হুদা মুকুট, পৌর মেয়র নাদের বখত, সিভিল সার্জন ডা. আহম্মদ হোসেন, জেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি রেজাউল করিম শামীম, সুনামগঞ্জ সদর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান খাইরুল হুদা চপল প্রমুখ।

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.