সেনবাগে উদ্ধার হওয়া কংকালটি ডিএনএ পরীক্ষায় পরিচয় নিশ্চিত

মোঃ জাহাঙ্গীর আলম নোয়াখালী প্রতিনিধি

৮৭

নোয়াখালীর সেনবাগ উপজেলার কাবিলপুর ইউনিয়নের ফতেহপুর গ্রামের (আজমনগর) পপুলার বিস্কুট ফ্যাক্টরীর মালিকানাধীন মেঘনা ব্রিকফিল্ডের পরিত্যক্ত স্টাফ কোয়ার্টারের বাগান থেকে গত ৩০ অক্টোবর উদ্ধার হওয়া কংকালটির পরিচয় পাওয়া গেছে।

কংকালটি বেগমগঞ্জ উপজেলার ১৩ নং রসুলপুর ইউনিয়নের রসুল গ্রামের আতর আলী মিয়া পন্ডিত বাড়ির মোঃ বাহার আলীর ছেলে মোঃ ইব্রাহিম প্রকাশ রনি’র (১৬)।

এরআগ গত ২২ সেপ্টেম্বর ২০২০ ইং মোঃ ইব্রাহিম প্রকাশ রনি নিখোঁজ হলে তার বড়ভাই মোঃ আল আমিন বাদি হয়ে বেগমগঞ্জ থানায় একটি নিখোঁজ ডাইরি নং ১২১৭ করেছিলেন।

ওই নিখোঁজ ডাইরি করার ১ মাস ১২ দিন পর নিখোজ রনি’র ভাই আল আমিনের দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে সেনবাগ থানা পুলিশ ৩০ অক্টোবর শুক্রবার রাতে ২০/২৫টি হাড়গোড় কংকাল উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে।

এসময় উদ্ধার হওয়া হাড়গোড় (কংকালটি ) রনি’র বলে দাবী করে তার পরিবারের সদস্যরা। এরপর ওই কংকালের পরিচয় নিশ্চিত হওয়ায় জন্য পুলিশ রনি’র পরিবারের সদস্যদের নমুনা সংগ্রহ করে ডিএনএ পরীক্ষার জন্য ঢাকায় প্রেরণ করে।

ডিএনএ পরীক্ষার পর উদ্ধার হওয়া হাড়গোড় (কংকালটি) নিখোঁজ রনি’র বলে নিশ্চিত হয় পুলিশ।
কংকালটি উদ্ধারের সময় রনি’র ভাই আল আমিন পুলিশ সহ গণমাধ্যম কর্মিদের জানিয়েছিলেন,তাদের সঙ্গে প্রতিবেশী এরশাদ, নুরনবী, জহিরুল ইসলাম বাবু, নুরুল আমিন, আবদুল মুন্নাফ ও আবদুর রহিমের সঙ্গে তাদের জায়গা জমিন নিয়ে বিরোধ ছিল। তারাই ভাইয়ের হত্যাকান্ডে তারা জড়িত থাকতে পারে।

এব্যাপারে সোমবার (২৪ মে) সকালে যোগাযোগ করলে,সেনবাগ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোঃ আবদুল বাতেন মৃধা বিষযয়টি নিশ্চিত করেন। তিনি আরো জানান যুবকের মৃত্যুর রহস্য উধঘাটনে মামলাটির নোয়াখালীর অপরাদ তদন্ত বিভাগ (সিআইডিতে) হস্তান্তর করা হয়েছে। মামলাটি তারা তদন্ত করে যুবকর মৃত্যু রহস্য উধঘাটন ও জড়িতদের চিহিৃন্ত করার দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে।

 

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.