সাধারণ সম্পাদকের পদে মতিউর রহমান মতির বিকল্প নাই *গাজীপুর মহানগর আওয়ামী লীগ*

টঙ্গী গাজীপুর প্রতিনিধি

৪৫

বশির আলম, গাজীপুর মহানগর আওয়ামী লীগের বর্তমান কমিটির সাধারণ সম্পাদকের পদ শূন্য হওয়াতে দলীয় কার্যক্রম সুসংগঠিত করতে উক্ত পদে চলমান কমিটির যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক মতিউর রহমান মতির নেতৃত্ত্ব চায় নেতা কর্মীরা।

এই নিয়ে মহানগর আওয়ামী লীগের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতা কর্মীরা জোড়ালো দাবীতে বিভিন্ন স্থানে আলোচনায় সভায় মিছিলে সোস্যাল মিডিয়াতে দাবী তুলছেন।

নেতা কর্মীদের কাছে এক মাত্র যোগ্য বলে মনে করেন। কেননা মতিউর রহমান মতি একজন পরিক্ষীত ত্যাগী নেতা। টঙ্গী সরকারী কলেজের ১৯৭৯-১৯৮০ কলেজ ছাত্র সংসদের ছাত্রলীগের নির্বাচিত জিএস পদে দায়িত্ব পালন করেছেন।

পরবর্তী সময় আওয়ামী লীগের দুঃসময়ে দলের জন্য নিবেদিত কাজ করে গেছেন। বর্তমান প্রেক্ষাপটে গাজীপুর মহানগর আওয়ামী লীগ থানা ও ওয়ার্ড পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন ও দলীয় শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনতে মতিউর রহমান মতির কোন বিকল্প নাই।

গত ২২ নভেম্বর টঙ্গী আওয়ামী লীগের দলীয় কার্যালয়ে শত শত নেতা কর্মীরা উপস্থিত হয়ে সাধারণ সম্পাদকের পদ পদবীর দাবীতে আলোচনা প্রসঙ্গে গাজীপুর মহিলা আওয়ামী লীগের একাংশ

নেত্রীরা বলেন, বর্তমান মহিলা আওয়ামী লীগের আহবায়ক কমিটি ভেঙ্গে একটি পরিপূর্ন পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন বর্তমান সময়ের দাবী।

এসময় তারা আরও বলেন, মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকের পদে মতি ভাইকে আমাদের একমাত্র যোগ্য বলে মনে করি।

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে নিয়ে কটূক্তি করার অভিযোগে গাজীপুর মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকের পদ থেকে বহিষ্কৃত হয়েছেন জাহাঙ্গীর আলম।

গত ১৯ নভেম্বর সন্ধ্যায় আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী পরিষদের সভায় গাজীপুর সিটি করর্পোরেশনের মেয়র জাহাঙ্গীরকে পদটি থেকে বহিষ্কারের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

তাঁকে বহিষ্কারের পর গাজীপুর মহানগর আওয়ামী লীগে এখন একটাই আলোচনা, কে হচ্ছেন ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক।

আওয়ামী লীগের গঠনতন্ত্র অনুযায়ী, সাধারণ সম্পাদক পদ থেকে কেউ বহিষ্কৃত হলে বা পদত্যাগ করলে ১ নম্বর যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করবেন।

জাহাঙ্গীরকে বহিষ্কারের পর ১ নম্বর যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আতাউল্লাহ মন্ডল হতে পারেন গাজীপুর মহানগর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক।

তবে শারীরিক অসুস্থতার কারণে বিগত কয়েক বছর দলীয় প্রায় সব কার্যক্রমে অংশ নিতে পারেননি আতাউল্লাহ মন্ডল। তবে তাঁর দাবি, তিনি সুস্থ আছেন। এদিকে, আতাউল্লাহর বিকল্প হিসেবে ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক হিসেবে জোর আলোচনায় আছেন মহানগর আওয়ামী লীগের ২ নম্বর যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মতিউর রহমান মতি।

তিনি গাজীপুর-২ আসনের প্রয়াত সংসদ আহসান উল্লাহ মাস্টারের ছোট ভাই এবং যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেলের চাচা। তিনি মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি আজমত উল্লাহ খানের ঘনিষ্ঠ হিসেবে পরিচিত।

টঙ্গী থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি ফজলুল হক বলেন, ‘জাহাঙ্গীর আলম গাজীপুরের আওয়ামী লীগে বিভাজন সৃষ্টি করেছেন। সেখান থেকে পুনরায় গাজীপুরকে আওয়ামী লীগের শক্তিশালী ঘাঁটি বানাতে হলে মতিউর রহমান মতিকে প্রয়োজন।’

এদিকে, নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক গাজীপুর মহানগর আওয়ামী লীগের একজন নেতা বলেন, ‘আতাউল্লাহ মন্ডল প্রবীণ আওয়ামী লীগ নেতা। তিনি দীর্ঘদিন অসুস্থ থাকায় সব রাজনৈতিক কর্মকান্ড থেকে নিজেকে বিরত রেখেছেন।

ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক কে হচ্ছেন, এ বিষয়ে গাজীপুর মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি আজমত উল্লাহ খান বলেন, ‘আমরা কেন্দ্রীয় সিদ্ধান্তের অপেক্ষায় আছি। আওয়ামী লীগের গঠনতন্ত্র অনুযায়ী ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক করা হবে।

 

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.