নেত্রকোনায় কোরবানির ষাঁড় সুলতান দেখতে মানুষের ভিড়

রতন মিয়া নেত্রকোনা:

৪৪

সুলতান নামক এক বিশাল আকৃতির কোরবানির ষাাঁড় এক নজর দেখার জন্য অসংখ্য মানুষ বাড়িতে ভিড় করছেন । সুলতান সম্রাটের মতোই লালিত পালিত হয়েছে সদর উপজেলার চল্লিশা ইউনিয়নের সনুরা গ্রামে খন্দকার আলম এর খামারে। আলম সাদা কালো রঙের সুলতানকে রাজকীয় স্টাইলে পালন করেছেন। সারা এলাকায় আকর্ষণীয় এ

ষাড়টিকে সুলতান নামেই চেনে সবাই। প্রাকৃতিক পরিবেশে নিজস্ব খামারে নিজেরাই লালন-পালন করে বিভিন্ন রকমের দেশি- বিদেশী জাতের গরু ।খন্দকার ফিসারী ডেইরি ফার্ম নামে এই গরুর খামারে ফ্রিজিয়ান জাতের ষাঁড়- গাভীসহ

দেশি গরু পালন করেছে এই তরুণ উদ্যোক্তা।২০২২ সালে উপজেলা প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরের প্রদর্শনী ২০২২ তে বিশেষ স্থান অধিকার করে।যর উচ্চতা ৫ ফুট ৬ ইঞ্চি ও ৯ লম্বা। ওজন ৩০ মন। মালিক আলম জানান,এবারের ঈদের

জন্য প্রস্তুত করা হয়েছে সুলতান সহ আরও দুটি ষাঁড় আশানুরূপ দাম পেলে বিক্রি করবেন। তিনি পরিবারের সদস্যদের মতো এটিকে লালন পালন করেন। একসময় ইচ্ছে ছিল এটিকে পারিবারিক ভাবে ঈদে কোরবানী দেয়ার।

কিন্তু পালিত সুলতানকে কোরবানি দিতে মন চাইছে না। এটি বিক্রি করে অন্য আরেকটি গরু কোরবানি দিতে পারিবারিকভাবে সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। আসন্ন ঈদুল আযহা উপলক্ষে এই সুলতানকে বিক্রয় দাম নির্ধারণ করা হয়েছে

১০,০০০০০ (দশ লাখ) টাকা। তবে ইতোমধ্যে ৭ লাখ টাকা দাম বলেছেন অনেকেই। সুলতানের জন্য যোগাযোগ তার মালিক আলম ভাইয়ের মোবাইল নম্বর -০১৭২৭৭০৪৪৬৯ । এ বিষয়ে খামারি সাথে সরেজমিনে কথা বললে তিনি

বলেন, আমার পেশায় হচ্ছে গরু লালন পালন করা। আমি খুব যত্ন সহকারে আমার গরু লালন পালন করে বড় করে তুলেছি। পবিত্র ঈদুল আযহা উপলক্ষে আমার এই গরু ভাল দামে বিক্রি করব এবং আমার কষ্টের সফলতা হবে, এমনটাই প্রত্যাশা উনার।

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.